বিচারক বদলির ঘটনা বিচার ব্যবস্থার উপর আওয়ামী ফ্যাসিবাদী সরকারের হস্তক্ষেপের নগ্ন প্রকাশ

Posted: 05 মার্চ, 2020

## অবিলম্বে বিচারক বদলি আদেশ প্রত্যাহার ও দুর্নীতিবাজদের পক্ষালম্বনকারী আইনমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি বাম গণতান্ত্রিক জোট কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সমন্বয়ক ও বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড বজলুর রশিদ ফিরোজ, কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের অন্যতম সদস্য সিপিবির সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোঃ শাহ আলম, বাসদ সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকী, বাসদ (মার্কসবাদী) সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নু, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কমরেড আকবর খান ও সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের হামিদুল হক এক বিবৃতিতে দেশের বিচার ব্যবস্থার চূড়ান্ত দলীয়করণ বিশেষ করে পিরোজপুরের বিচারক বদলির ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, এটা আওয়ামী ফ্যাসিবাদী সরকারের বিচার বিভাগের উপর হস্তক্ষেপ ও নিয়ন্ত্রণের নগ্ন প্রকাশ। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, ভোট ডাকাতির মাধ্যমে ক্ষমতাসীন আওয়ামী ফ্যাসিবাদী সরকার বিচার বিভাগসহ সকল সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে ফেলেছে। ইতিপূর্বে দেশের প্রধান বিচারপতিকে দেশ ছাড়া করেছে তাঁর দেয়া রায় সরকারের বিপক্ষে যাওয়ায়। বর্তমান সরকার নির্বাচন কমিশনকে যাদুর প্রতিষ্ঠানে পরিণত করে নির্বাচনকে নির্বাসনে পাঠিয়ে গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছে। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, পিরোজপুরের আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সাংসদ আউয়াল ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদক এর মামলায় জামিন না দেয়ায় জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আব্দুল মান্নানকে আইনমন্ত্রণালয় থেকে বদলি করে ভারপ্রাপ্ত জেলা জজকে দিয়ে কয়েক ঘণ্টা পর জামিন করিয়ে নেয়ার ঘটনা বিচার বিভাগের ইতিহাসে নজিরবিহীন। নেতৃবৃন্দ বলেন এমনিতেই বিচার ব্যবস্থার উপর জনগণের আস্থা নাই, এ ঘটনা আস্থাহীনতাকে আরো দৃঢ় করছে। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, এ ঘটনায় আইনমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্য ‘পরিস্থিতি সামাল দিতে বিচারক বদলি’ প্রমাণ করে সরকারী দলের নেতা-নেত্রীরা দুর্নীতিবাজ হলে তারা আইনের উর্ধ্বে। বিবৃতিতে অবিলম্বে বিচারক বদলির আদেশ প্রত্যাহার ও দুর্নীতিবাজ আওয়ামী লীগ নেতার গ্রেপ্তার ও বিচার দাবি করেন। একই সাথে দুর্নীতিবাজদের পক্ষাবলম্বনকারী আইনমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন।