গ্যাসের অযৌক্তিক মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বাম জোটের জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাও পুলিশি আক্রমণে নেতা-কর্মীরা আহত

Posted: 14 জুলাই, 2019

গ্যাসের অযৌক্তিক মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে, সিলিন্ডার গ্যাসের দাম কমানোর দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোট আজ ১৪ জুলাই ‘জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাও’ করেছে। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জোট সমন্বয়ক ও ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নুর সভাপতিত্বে ঘেরাও পূর্ব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ আলম, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজ, গণসংহতি আন্দোলনের নির্বাহী সমন্বয়ক আবুল হাসান রুবেল, বাসদ (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মানস নন্দী, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক হামিদুল হক, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির লিয়াকত আলী। সমাবেশ পরিচালনা করেন বাসদ নেতা খালেকুজ্জামান লিপন। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, একই উৎস কাতার থেকে ভারত প্রতি হাজার ঘনফুট এলএনজি গ্যাস কেনে ৬ ডলারে বাংলাদেশ কেনে ১০ ডলারে। সরকার সমর্থক এলএনজি গ্যাস আমদানিকারকদের জনগণের পকেট কাটার সুবিধা করে দেয়ার জন্য এ ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। আমদানিকৃত এলএনজি গ্যাসে প্রদত্ত ভর্তুকি বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দেন তা নাকচ করে নেতৃবৃন্দ বলেন, গ্যাস খাতে চুরি, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনার রোধ করতে পারলে বছরে ১৬ হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় করা সম্ভব। তারা বলেন, এক দিকে ভর্তুকির কথা বলা হচ্ছে অন্য দিকে গ্যাস সরবরাহ ও বিতরণকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের মুনাফা প্রতি বছর বৃদ্ধি পাচ্ছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, মন্ত্রীরা গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি সম্পর্কে যে সকল বক্তব্য রাখছেন তা দেশবাসীকে অবমাননার সমতুল্য এবং এটা কেবলই স্বৈরাচারী ব্যবস্থায় সম্ভব। আগামী ১৯ জুলাই বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি সভা থেকে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি দেয়ার ঘোষণা দেন জোট সমন্বয়ক মোশাররফ হোসেন নান্নু। ঘেরাও মিছিলে পুলিশি আক্রমণে নেতা-কর্মীরা আহত সমাবেশ শেষে মিছিলসহকারে জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাও করতে গেলে পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের আক্রমণে কমিউনিস্ট পার্টির ঢাকা কমিটির সম্পাদকম-লীর সদস্য খান আসাদুজ্জামান মাসুম, ছাত্র ফেডারেশনের সম্পাদক জাহিদ সুজন, আশিক, সাকিব, গণসংহতি আন্দোলনের আক্তার, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নাসির উদ্দিন, আরিফুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম অভি আহত হন। বাম জোটের কেন্দ্রীয় পরিচালনা কমিটি নেতা-কর্মীদের ওপর পুলিশি আক্রমণের তীব্র নিন্দা জানান।