দেশবাসীর প্রতি বাম গণতান্ত্রিক জোটের আহ্বান গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে আগামীকাল হরতাল পালন করুন

Posted: 06 জুলাই, 2019

জনস্বার্থ উপেক্ষা করে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে, সিলিন্ডার গ্যাসের দাম কমানোর দাবিতে এবং জনদুর্ভোগের বাজেটের প্রতিবাদে বাম গণতান্ত্রিক জোট আহূত আগামী ৭ জুলাই ২০১৯, রবিবার, দেশব্যাপী অর্ধদিবস (৬টা-২টা) হরতাল সফল করতে আজ ৬ জুলাই জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল পর্যন্ত পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। পদযাত্রায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতৃবৃন্দ গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে আগামীকাল দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণ হরতাল পালনের জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে পদযাত্রার সূচনায় বক্তব্য রাখেন, বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নু, সিপিবি’র সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাজেকুজ্জামান রতন। সদরঘাট টার্মিনালে পদযাত্রার সমাপনীতে বক্তব্য রাখেন কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ আলম। পদযাত্রায় অংশ নেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজ, বাসদ (মার্কসাদী)’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মানস নন্দী, গণসংহতি আন্দোলনের সম্পাদকম-লীর সদস্য বাচ্চু ভূঁইয়া, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক হামিদুল হক, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা লিয়াকত আলী, সিপিবি’র সহকারী সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ জহির চন্দন, প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য বহ্নি শিখা জামালী, বাসদ (মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ফখরুদ্দিন কবীর আতিক প্রমুখ। বাম জোটের নেতৃবৃন্দ বলেন, গণশুনানীতে আমাদের বক্তব্য অগ্রাহ্য করে বিইআরসি অযৌক্তিভাবে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করেছে। রান্নার গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করায় জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়বে। সিএনজির দাম বৃদ্ধি করায় পরিবহন ব্যয় বাড়বে। শিল্প কারখানায় ব্যবহৃত গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করায় শিল্প পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাবে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সরবরাহকৃত গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করায় বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি পাবে। বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি পেলে শিল্প পণ্যসহ, কৃষি সেচে ব্যয় বৃদ্ধি পাবে। এইভাবে ব্যয় বৃদ্ধির ফাঁদে জনগণ নিপতিত হবে। জনগণের জীবন নির্বাহের ব্যয় বাড়বে। তাদের পকেট থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া হবে। নেতৃবৃন্দ বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে এলএনজির দাম কমায় ভারতে সিলিন্ডার গ্যাসের দাম হ্রাস করা হয়েছে। অন্যদিকে বাংলাদেশ সরকার এলএনজি, এলপিজি গ্যাস ব্যবসায়ীদের পকেট ভারী করার জন্য সিলিন্ডার গ্যাসের দাম কৃত্রিমভাবে বাড়িয়ে রেখেছে। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে সিলিন্ডার গ্যাসের দাম বর্তমান বাজার দামের অর্ধেকে কমিয়ে আনার দাবি জানান। নেতৃবৃন্দ আগামীকালের হরতালে কোনো প্রকার উস্কানি প্রদান না করার জন্য সরকারকে হুঁশিয়ার করে দেন এবং দেশবাসীকে কোনো ধরনের উস্কানিতে পা না দিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে জনস্বার্থের এ হরতাল সফল করার আহ্বান জানান। নেতৃবৃন্দ অন্যান্য দেশপ্রেমিক গণতান্ত্রিক দলসমূহকে হরতালের সমর্থনে রাজপথে নেমে আসার আহ্বান জানান।