Register or Login
করোনা মহামারীতে স্বাস্থ্যসেবা, বন্যা, রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধ, শ্রমিক ছঁাটাই, খাদ্য ও জননিরাপত্তাসহ বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্য
Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ, বাম গণতান্ত্রিক জোটের পক্ষ থেকে আপনাদের জানাই শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। করোনাকালে ঝঁুকি নিয়ে আপনারা প্রতিনিয়ত সংবাদ সংগ্রহ ও দেশবাসীর কাছে তুলে ধরছেন এজন্য আবারও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সাংবাদিক বন্ধুগণ, বৈশ্বিক মহামারী করোনায় সারা বিশ্বের অর্থনৈতিক সামাজিক অবস্থা আজ বিপর্যস্ত। করোনা একটি স্বাস্থ্য সমস্যা হলেও এর প্রধান আঘাত এসেছে অর্থনীতি ও সামাজিক পরিমণ্ডলে। চীনের উহান থেকে শুরু হওয়া কভিড-১৯ এর আঘাত বাংলাদেশে আসতে সময় লেগেছে তিন মাসের বেশি। গতকাল পর্যন্ত দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে ২৯২৮ জন। উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছে আরো দ্বিগুণ সংখ্যক মানুষ। করোনা মোকাবেলায় প্রথমে সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের সব প্রস্তুতি আছে বলে বাগাড়ম্বর করা হলেও বাস্তবে এতোটা সময় পেয়েও যে কোন প্রস্তুতিই ছিল না তা এখন উন্মোচিত হয়েছে। বাম গণতান্ত্রিক জোটের পক্ষ থেকে শুরু থেকেই আমরা বার বার বলেছিলাম যে বাংলাদেশ এক ভয়াবহ স্বাস্থ্য ঝুঁকি ও অর্থনৈতিক সংকটের মুখে পড়তে যাচ্ছে এবং আহ্বান জানিয়েছিলাম এই বৈশ্বিক মহামারীকে জাতীয় দুর্যোগ ঘোষণা করে স্বাস্থ্য, অর্থনীতিসহ সকল ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞ, রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজসহ সকলের সমন্বয়ে দুর্যোগ মোকাবিলায় সমন্বিত জাতীয় উদ্যোগ নেয়া হোক। কিন্তু আমাদের সেই প্রস্তাব সরকার গ্রহণ করে নাই। আজ প্রমাণ হয়েছে করোনা মোকাবেলায় সরকার সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয়েছে। ক্ষমতাসীন দল দিনের ভোট রাতে সীল মেরে ক্ষমতা দখল করে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে বিপর্যস্ত করেছে, রাষ্ট্রের সমস্ত কাঠামোকেও দুর্বল, ভঙ্গুর ও দুর্নীতিগ্রস্থ করে ফেলেছে। তারই বহিঃপ্রকাশ এই করোনাকালে দেশবাসী প্রত্যক্ষ করলো। করোনার সংক্রমণের সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে দুর্নীতি লুটপাট। সরকারদলীয় জনপ্রতিনিধিদের ত্রাণ চুরি, দ্রব্যমূল্য নিয়ে সিন্ডিকেট, শ্রমিক ছাঁটাই, গার্মেন্টস মালিকদের প্রণোদনা সহায়তা আর শ্রমিকদের সাথে প্রতারণা ও নিপীড়ন, ২৫টি রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধ করে হাজার হাজার শ্রমিক ছাঁটাই আর জনগণের সম্পদ লুটপাটের জন্য উন্মুক্ত করা সবই চলছে এই করোনা সংকটের মাঝেই। দেশের স্বাস্থ্য খাত দীর্ঘদিন ধরেই অবহেলিত ও দুর্নীতিগ্রস্ত। বাজেটে বরাদ্দ বাড়ে না, দুর্নীতি লুটপাটও কমে না। ফলে স্বাস্থ্যখাত জরাজীর্ণ। স্বাস্থ্যখাতের এই ভগ্নদশা ব্যাপকভাবে উন্মোচিত হয়েছে করোনাকালে। করোনা রোগী ছাড়াও সাধারণ রোগীরা চিকিৎসাসেবা না পেয়ে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতাল ঘুরে রাস্তায় মৃত্যুবরণ করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বেশি করে টেস্ট করার কথা বললেও শুরু থেকেই আমাদের সরকার কম টেস্ট করার কৌশল নেয় এবং একটি মাত্র প্রতিষ্ঠানে টেস্ট করা হয়। সরকারী ডাক্তার, চিকিৎসাসেবা কর্মী, টেকনোলজিস্ট,  ওষুধের স্বল্পতা তো ছিলই এখন দেখা যাচ্ছে হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহ, আইসিইউ, ভেন্টিলেটর নাই। স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতির ১১টি উৎস এবং ২৫ দফা সুপারিশ নিয়ে একটি প্রতিবেদন দুদক দিয়েছিল স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিকের কাছে ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে। যদিও আমাদের বিবেচনায় তা ছিল দুর্নীতির সামান্য চিত্র মাত্র। কিন্তু আওয়ামী লীগের সরকার দুদকের সেই প্রতিবেদনকেও তোয়াক্কা করে নাই। ফলে সুপারিশ বাস্তবায়ন হয় নি। দুর্নীতির উৎস বন্ধ হয় নি। দুর্নীতি চলছে দেদারছে, মিঠু সিন্ডিকেট মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের সহায়তায় হাসপাতালে যন্ত্রপাতি না দিয়ে খালি বাক্স সরবরাহ করে হাতিয়ে নিয়েছে শত শত কোটি টাকা। মাস্ক, পিপিই সহ সুরক্ষা সামগ্রীতে ভয়াবহ দুর্নীতির ফল ভোগ করতে হচ্ছে ডাক্তার, নার্স, চিকিৎসা কর্মীসহ সন্মুখসারির করোনা যোদ্ধাদের এবং দেশের জনগণকে। নকল মাস্ক সরবরাহকারী জেএমআই এর বিরুদ্ধে কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা এখনও নেয়া হয় নি। রিজেন্ট হাসপাতালে ৬৫০০ এবং জেকেজি তে ১৫০০০ ভূয়া করোনা টেস্টের রিপোর্টের খবরে দেশবাসী আতঙ্কিত। শুধু দেশেই নয়, বিদেশেও দেশের ভাবমূর্তি ধূলায় লুটিয়ে দিয়েছে এরা। ইটালি বাংলাদেশকে করোনা বোমা আখ্যায়িত করে যাত্রী ফেরৎ পাঠিয়েছে। একদিকে টেস্ট কম, ভূয়া রিপোর্ট, অন্যদিকে আক্রান্ত ও মৃত্যুর খবর নিয়ে লুকোছাপা করার ঘটনা ক্রমাগত ঘটেই চলেছে। এরই মধ্যে সরকার করোনা টেস্টে ফি নির্ধারণ করেছে জনমত উপেক্ষা করে। বেসরকারি হাসপাতালগুলো শুরুতে এই করোনা মহামারী মোকাবেলায় এগিয়ে আসেনি। পরে চিকিৎসার নামে জালজালিয়াতি, অতিরিক্ত বিল ইত্যাদির মাধ্যমে জনগণের পকেট কাটতে থাকে। আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতাল, শাহাবুদ্দিন হাসপাতাল, প্রশান্তি ক্লিনিক, ল্যাব এইড, পপুলার, ইউনাইটেড প্রভৃতি হাসপাতালের এসব খবর

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..

© Copyright Communist Party of Bangladesh 2020. Beta