Register or Login
সিপিবি ৭৫ আসনে মনোনয়ন জমা
Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র কাস্তে মার্কার প্রার্থীরা ৭৫ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে। এছাড়া কাস্তে মার্কা নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের অন্যান্য দলের ২ জন প্রার্থীও আজ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে। সিপিবি’র পক্ষ থেকে ৮৩ আসনে মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হলেও এ সময়ের মধ্যে জামানত ও সিডি কেনার টাকা জোগাড়সহ অন্যান্য জটিলতায় শেষ পর্যন্ত সকলের মনোনয়নপত্র জমা দেয়া সম্ভব হয়নি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কমিউনিস্ট পার্টির ‘কাস্তে’ মার্কায় যারা নির্বাচন করছেন ১। পঞ্চগড়-২ (আশরাফুল আলম) বৃহত্তর-দিনাজপুর অঞ্চলের ক্ষেতমজুর আন্দোলনের অন্যতম সংগ্রামী নেতা, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি পঞ্চগড় জেলা সাধারণ সম্পাদক কমরেড আশরাফুল আলম। ২। ঠাকুরগাঁও-২ (প্রভাত সমীর শাহজাহান আলম) ৯০’র দশকে ঠাকুরগাঁও জেলার অন্যতম ছাত্রনেতা, ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জ অঞ্চলের সংগ্রামী কৃষকনেতা, বাংলাদেশ কৃষক সমিতি পীরগঞ্জ উপজেলা কমিটির সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি পীরগঞ্জ উপজেলা কমিটির সদস্য প্রভাত সমীর শাহজাহান আলম। ৩। দিনাজপুর-৩ (মো. বদিউজ্জামান বাদল) বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি দিনাজপুর জেলা সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ কৃষক সমিতির দিনাজপুর জেলা সভাপতি, বাকবিশিস দিনাজপুর জেলা সাধারণ সম্পাদক বৃহত্তর দিনাজপুর অঞ্চলের কৃষক ও শিক্ষক আন্দোলনের অগ্রপথিক মো. বদিউজ্জামান বাদল। ৪। দিনাজপুর-৪ (রিয়াজুল ইসলাম রাজু) খানসামা, চিরিবন্দর অঞ্চলের বিশিষ্ট সমাজ সেবক, সংগঠক, বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট কমিউনিস্ট নেতা রিয়াজুল ইসলাম রাজু। ৫। রংপুর-৬ (অধ্যাপক কামরুজ্জামান) বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, সাবেক ছাত্রনেতা ভূমিহীনদের খাস জমি আন্দোলনের লড়াকু সৈনিক, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি পীরগঞ্জ উপজেলার সভাপতি অধ্যাপক কামরুজ্জামান। ৬। কুড়িগ্রাম-২ (উপেন্দ্রনাথ রায়) ৮০’র দশকের ভূমিহীন মঙ্গা পড়ীতি অঞ্চলের ক্ষেতমজুর আন্দোলনের সংগ্রামী নেতা, ৯০’র দশকের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের সংগঠক, বিশিষ্ট ক্ষেতমজুর নেতা, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র কুড়িগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি উপেন্দ্রনাথ রায়। ৭। কুড়িগ্রাম-৩ (দেলোয়ার হোসেন) উলিপুর-চিলমারী অঞ্চলের ৮০’র দশকের ক্ষেতমজুর আন্দোলনের সংগঠক, বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য দেলোয়ার হোসেন। ৮। গাইবান্ধা-১ (নূরে আলম মানিক) সুন্দরগঞ্জ অঞ্চলের কৃষক আন্দোলনের অন্যতম নেতা, সিপিবি সুন্দরগঞ্জ উপজেলার নেতা নূরে আলম মানিক। ৯। গাইবান্ধা-৩ (মিহির ঘোষ) স্বৈরাচারবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সংগঠক, দারিয়াপুর হাটের ইজরাদারবিরোধী আন্দোলনের নেতৃত্ব দানকারী বিপ্লবী কমিউনিস্ট নেতা, সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জননেতা মিহির ঘোষ। ১০। গাইবান্ধা-৫ (যজ্ঞেশ্বর বর্মন) সাঘাটা, ফুলছড়ি অঞ্চলের সংগ্রামী কৃষকনেতা, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সাঘাটা উপজেলার সংগ্রামী সাধারণ সম্পাদক যজ্ঞেশ্বর বর্মন। ১১। বগুড়া-৫ (সন্তোষ পাল) শেরপুর, ধুনট অঞ্চলের সংগ্রামী কৃষক নেতা, ন্যাপ কমিউনিস্ট পার্টি, ছাত্র ইউনিয়ন গেরিলা বাহিনীর সদস্য সিপিবি বগুড়া সদর উপজেলা কমিটির সভাপতি সন্তোষ পাল। ১২। বগুড়া-৬ (আমিনুল ফরিদ) বগুড়া আজিজুল হক সরকারি কলেজের ছাত্র সংসদের পরপর ২ বার নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক, বগুড়া পৌরসভার পরপর ৪ বার নির্বাচিত কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি বগুড়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আমিনুল ফরিদ। ১৩। নওগাঁ-৪ (ডা. ফজলুর রহমান) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটি সহ-সভাপতি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. ফজলুর রহমান। ১৪। রাজশাহী-২ (এনামুল হক) বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি রাজশাহী জেলা কমিটির সংগ্রামী সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এনামুল হক। ১৫। সিরাজগঞ্জ-৩ (মোস্তফা নুরুল আমিন) রায়গঞ্জ, তাড়াশ অঞ্চলের কৃষক ও ক্ষেতমজুর আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক মোস্তফা নুরুল আমিন। ১৬। কুষ্টিয়া-২ (অধ্যাপক ওয়াহেদুজ্জামান পিন্টু) মিরপুর, ভেড়ামারা অঞ্চলের বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী কমিউনিস্ট নেতা অধ্যাপক ওয়াহেদুজ্জামান পিন্টু। ১৭। ঝিনাইদহ-৪ (ফনিভ‚ষণ রায়) ঝিনাইদহ অঞ্চলের বিশিষ্ট কৃষক নেতা ফনিভূষণ রায়। ১৮। বাগেরহাট-২ (খান সেকেন্দার আলী) বাগেরহাট অঞ্চলের অন্যতম কৃষক নেতা, বাংলাদেশ কৃষক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য খান সেকেন্দার আলী। ১৯।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..

© Copyright Communist Party of Bangladesh 2019. Beta