Revolutionary democratic transformation towards socialism

শ্রমিকশ্রেণির মুক্তির লড়াইয়ে 'মুল্লুকে চলো' আন্দোলন পথ দেখাবে


শ্রমিকদের গৌরবময় লড়াই ‘মুল্লুকে চলো’ আন্দোলনের শতবর্ষ পূর্তিতে সমাবেশে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, আজ শত বছর পরেও গুলি চালিয়ে শ্রমিক হত্যা চলছে। শ্রমিকশ্রেণির ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে শত বছরের জুলুম ও শোষণতন্ত্রের অবসান ঘটাতে হবে। তিনি ইতিহাসের বরাত দিয়ে বলেন, ‘মুল্লুকে চলো’ আন্দোলনে চা শ্রমিকদের সাথে রেল-স্টিমারসহ অন্যান্য শ্রমিকদের দীর্ঘ সংহতি ধর্মঘট, দেশব্যাপী মুক্তিকামী জনতার রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়ায় সেদিন কোম্পানি ও শাসকরা পরাজিত হয়েছিল। তিনি বলেন,

শ্রমিকশ্রেণি ও দেশের মানুষের মুক্তির জন্য আজ একইভাবে শাসকশ্রেণির বিরুদ্ধে বজ্রকঠোর ঐক্য ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

চা শ্রমিকদের ‘মুল্লুকে চলো’ আন্দোলনের শতবর্ষ উদযাপনে দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় কর্মসূচি হিসেবে আজ ২০ মে ২০২১, বৃহষ্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করেছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। সিপিবি সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, পার্টির সহকারী সাধারণ সম্পাদক কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন, প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লাহ ক্বাফি

রতন, সম্পাদক আহসান হাবীব লাবলু, কেন্দ্রীয় নেতা ডা. ফজলুর রহমান, কৃষকনেতা নিমাই গাঙ্গুলি, শ্রমিকনেতা আকতার হোসেন, যুবনেতা খান আসাদুজ্জামান মাসুম, ছাত্রনেতা মিখা পিরেগু।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, প্রচলিত সকল সুযোগ সুবিধা বহাল রেখে (রেশন, বাসা, চিকিৎসা ইত্যাদি সহ) শ্রমিকদের ন্যূনতম দৈনিক মজুরি ৫০০ টাকা নির্ধারণ করতে হবে। বক্তারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখা চা শ্রমিকদের জাতিসত্তা, ভাষা ও সংস্কৃতির স্বীকৃতি প্রদানের দাবি জানান। সমাবেশ থেকে চা শ্রমিকদের ১০-দফা মেনে নেয়ার দাবি জানানো হয়।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন

Login to comment..